জগন্নাথ হল ট্রাজেডি দিবস ১৫ই অক্টোবর উপলক্ষ্যে আজ Jagannath Hall Alumni Association UK আয়োজন করে স্মরন সভার।

তখনকার ছাত্র ছিলেন এমন কয়েকজনের কাছ থেকে শুনলাম মর্মান্তিক সেইসব কাহিনী।
১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের পর ঢাকাবাসী এই প্রথম তাদের সহমর্মিতা ও আহতদের বাচানোর জন্য রক্ত দেয়ার জন্য রাতে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাডিয়ে ছিল। এমন দৃশ্য বিরল ছিল।

আমাদের মধ্যে সমীর দা ছিলেন গুরুতর আহতদের একজন। উনার গা শিহরন জাগানো বক্তব্য শুনে মনে হল কত কষ্টই না করেছে কয়েকশ আহত তখনকার ছাত্রগন।

ইতিহাস:

(৩৪ বছর আগে ১৯৮৫ সালের এই দিনে রাত নয়টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের টিভি রুমের ছাদ ধসে ৩৯ জন নিহত হন। নিহতের মধ্যে ২৫ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং ১৫ জন কর্মচারী ও অতিথি ছিলেন।

১৯৮৫ সালের এই দিনে বাংলাদেশ টেলিভিশনে জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক শুকতারা দেখছিলেন কয়েক শ শিক্ষার্থী। হঠাৎ করেই ধসে পড়ে টিভি রুমের দুর্বল ছাদ। ঘটনাস্থলেই নিহত হন ৩৮ জন। পরে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৯-এ।
জগন্নাথ হলের ধসে পড়া ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছিল ১৯২১ সালে। ১৯৮৫ সালে ভেঙে পড়ার আগেই এটি মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে।

১৯৮৫ সালের ১৫ অক্টোবর রাত পৌনে নয়টায় দুর্গাপূজার ছুটিতে পরদিন বাড়ি যাবে এমন ৩৯ ছাত্র, দর্শনার্থী এবং কর্মচারীকে এখানে প্রাণ হারাতে হয়। সেই সঙ্গে আহত হয় আরও প্রায় ৩০০ জন।

হঠাৎ ভয়ংকর নারকীয় অবস্থা। মুহূর্তে টিভি রুমটি এক ধ্বংস স্তুপ। বৃষ্টির পানিতে ৬৪ বছরের পুরনো চুন-সুড়কির ছাদ ভেঙ্গে গেছে। ইট,লোহা ও কাঠের গরাদসহ চুন-সুড়কির স্তূপে চাপা পড়ে মেধাবী প্রাণ।
দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে ঘটে যাওয়া এই সংবাদ মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। দ্রুত উদ্ধার কাজে এগিয়ে আসেন অন্যান্য হলের ছাত্র-ছাত্রীরা। আহতদের চিকিৎসার জন্য ঢাকার সকল হাসপাতালের সামনে রক্তদাতাদের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। – সংগৃহীত)

Jagannath Hall Alumni Association Uk